মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০২:৪৩ অপরাহ্ন

আপডেট
*** সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698  ***              সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698 ***                     *** সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698  ***              সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698 ***

কালিয়াকৈরে অবৈধ ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে কৃষকের ধানে ব্যাপক ক্ষতি

কালিয়াকৈরে অবৈধ ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে কৃষকের ধানে ব্যাপক ক্ষতি

ফজলে রাব্বি, কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার কয়েকটি এলাকায় ধানের ক্ষেতের পাশে ইটঁভাটা চালু থাকায় ধানে হয়েছে চিটা। ফলে উৎপাদিত ফসলে ঘরে তুলতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়েছে স্থানীয় কৃষকরা। ওই সব অবৈধ ভাবে নির্মিত ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে প্রায় ৬/৭ হেক্টর বোরো ধানক্ষেত জলসে গেছে। ধানক্ষেত জলসে যাওয়ার পর ক্ষতিপুরণ ও কঠোর শাস্তির দাবিতে অসহায় কৃষকরা ঘুরছে উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরে দপ্তরে।

উপজেলা কৃষি অফিস ও ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা জানান,কালিয়াকৈর উপজেলার বোর্ডঘর, হিজলতলী, বলিয়াদী, মরহাবহ,দরবাড়িয়া, কুুতুবদিয়া, মেদীআশুলাই, আষাড়িয়াবাড়ি, বড়ইবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় দুই ফসলি জমির উপর গড়ে উঠেছে প্রায় ৩৫-৪০টি অবৈধ ইটভাটা। এর মধ্যে উপজেলার আটাবহ ইউনিয়নের দরবাড়িয়া এলাকায় এনএমবি নামের একটি ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে প্রায় ২ হেক্টর এবং  বেগুনবাড়ি এলাকায় এসবিসি ও এমবিসি নামে দুটি ইটভাটায় বিষাক্ত গ্যাসে ৪ হেক্টর জমির বোরো ধান জলসে গেছে। এতে প্রায় অর্ধশত কৃষকের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এখন ক্ষতিপুরণ ও কঠোর শাস্তির আশায় কৃষি দপ্তরসহ বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরে বেড়াচ্ছে কৃষকরা। তবে এবিষয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নেই কোন নজরধারী।

ক্ষতিগ্রস্থ্যদের মধ্যে কৃষক সামসুল হক, হাজিরা বেগম, শুকুর আলী, ওসমান মিয়া, আব্দুল কাদের,মোক্তার আলী,জবেদ আলী অভিযোগ করে বলেন, ইটভাটা বন্ধের পর ১৫ দিন পানি দিয়ে রেখে পরে তা খোলে দিতে হয়। কিন্তু ওই তিনটি ইটভাটায় দুদিনের মাথায় বিষাক্ত গ্যাস ছেড়ে দিয়েছে ইটভাটা কর্তৃপক্ষ। এই বিষাক্ত গ্যাসে প্রায় ৬ হেক্টর বোরো ধানক্ষেত জলসে গেছে। ফলে ধানে চাল ধরেনি পরিবর্তে চিটা হয়েছে। এছাড়া ওই গ্যাসে মৌসুমী ফসল, গাছপালাসহ বিভিন্ন শস্যাদি জলসে গেছে।এ ছাড়াও ইটভাটার ধোয়া ও বিষাক্ত গ্যাসের কারনে এলাকার বিভিন্ন গাছের ফল ধরা যেমন আম,কাঠালসহ বিভিন্ন ফল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।দরবাড়ীয়া এলাকায় ইতিপূর্বেও ইট ভাটার ধোয়া ও বিষাক্ত গ্যাসের কারনে একই মৌসুমে ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল। ইটভাটার মালিকরা প্রভাবশালী হওয়ায় কয়েকজনকে ক্ষতিপুরণ দিলেও  বেশির ভাগ কৃষককে ক্ষতিপুরণ দেওয়া হয়নি।  বেগুনবাড়ি এলাকার এসবিসি ইটভাটার ম্যানেজার সোহেল জানান গ্যাসের কারণে ধানক্ষেত জলসে যেসব কৃষকের ক্ষতি হয়েছে, আমরা  সেসব কৃষকদের ক্ষতিপুরণ দিয়েছি। যদি কেউ না  পেয়ে থাকে তারা আমাদের সঙ্গে যোগযোগ করলে তাদের ক্ষতিপুরণ দিবো। দরবাড়িয়া এলাকার এনবিএম ইটভাটার মালিক ওবায়দুর জানান, ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসের কারণে বোরো ধানের ক্ষতি হয়নি। ওই ধান ক্ষেতে পোঁকার কারণে ক্ষতি হয়েছে।

কালিয়াকৈর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আশীষ কুমার কর জানান, পানি দিয়ে ১৫ দিন রাখার পর ইটভাটার গ্যাস ছাড়ার কথা থাকলেও তারা ২-৩ দিনে ছেড়ে দিয়েছে। ফলে বিষাক্ত গ্যাসে ধানক্ষেতের ক্ষতি হয়েছে। এ বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।


Search News




©2020 Daily matrichaya. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD