মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ১২:৪৮ অপরাহ্ন

আপডেট
*** সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698  ***              সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698 ***                     *** সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698  ***              সিসি ক্যামেরা সিস্টেম নিতে যোগাযোগ করুন - 01312-556698 ***
সংবাদ শিরোনাম :
শার্শার সাতমাইল পশু হাটে ব্যাপক অনিয়ম নিরব উপজেলা প্রশাসন! বেনাপোলে অনলাইন প্রতারক চক্রের দুই সদস্য আটক বেনাপোলে রাজস্ব কর্মকর্তার উপর হামলাকারীদের আটকের দাবিতে মানববন্ধন চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের তৎপরতায় মাদক সহ চালক গ্রেপ্তার চাকরি হারালেন ঘুষের টাকা সহ আটক কাস্টম কর্মকর্তা মুকুল বেনাপোলে প্রশাসনকে বোকা বানাতে স্বর্ণ চোরাকারবারিদের লোক দেখানো ব্যবসা বেনাপোলে কৃত্রিম যানজটের শিকার ৪ গ্রামবাসি সহ ভারতগামী পাসপোর্ট যাত্রীরা বাসার দরজার তালা ভেঙ্গে কয়েক লক্ষ টাকার স্বর্ণালঙ্কার লুট, থানায় অভিযোগ দায়ের ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে গ্যাস সিলিন্ডার রিফিল করা হচ্ছে সোনাইমুড়ীতে যৌতুকের মামলায় স্বামী শ্রীঘরে

সিরাজগঞ্জে গৃহবধু হত্যা মামলা রায়ে, স্বামীসহ ৪ ভাইয়ের ফাঁসি রায় দিয়েছেন আদালত

সিরাজগঞ্জে গৃহবধু হত্যা মামলা রায়ে, স্বামীসহ ৪ ভাইয়ের ফাঁসি রায় দিয়েছেন আদালত

যৌতুকের দাবিতে ১৮ বছর আগে সিরাজগঞ্জ শহরের আলোচিত গৃহবধু হত্যা মামলার রায়ে স্বামীসহ ৪ ভাইকে ফাঁসির রায় দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।গত ২২ জানুয়ারি’২০১৯ মঙ্গলবার দুপুরে আসামীদের অনুপস্থিতিতে সিরাজগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক ফজলে খোদা মো. নাজির এ রায় দেন।দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, সিরাজগঞ্জ শহরের মুজিব সড়কের তৎকালীণ শীলা জুয়েলার্সের মালিক সতীশ চন্দ্র রায়ের ছেলে ও গৃহবধুর স্বামী সুবীর কুমার রায়, তার ভাই ডা. সুশীল কুমার রায়, সুনীল কুমার রায় ও মনোরঞ্জন কুমার রায়।আদালত সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৯ সালে সতীশ চন্দ্র রায়ের ৪র্থ ছেলে সুবীর কুমার রায়ের সাথে টাঙ্গাইল শহরের গোপীনাথ বিশ্বাসের মেয়ে সুমী রাণীর বিয়ে হয়। বিয়ের সময় ৫ লাখ টাকা যৌতুকের মধ্যে আড়াই লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়। বাকি টাকার জন্য সুমী রাণীকে বিভিন্ন সময় নির্যাতন করা হতো। ২০০১ সালের ১২ই জানুয়ারি সন্ধ্যায় সুমী রাণীকে মারধরসহ গলা টিপে হত্যা করার ঘটনা ঘটে। পরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্বহত্যা করেছে বলে মনোরঞ্জন রায় থানায় সাধারণ ডায়রি করেন।ময়নাতদন্তে সুমী রাণীকে হত্যা করা হয়েছে মর্মে প্রতিবেদন পাওয়ায় পুলিশ বাদী হয়ে ২০০১ সালের ১৫ই জানুয়ারি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর গোপীনাথ বিশ্বাসও তার মেয়ে জামাই ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর থেকে সুবীর কুমার রায় ও তার ৩ ভাই পলাতক।আসামীদের পক্ষে আদালতে রাষ্ট্র নিযুক্ত আইনজীবী মামলা পরিচালনা করেন।


Search News




©2020 Daily matrichaya. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD